প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হয়ে ব্রুনাই যাচ্ছেন ড. কাজী এরতেজা হাসান ।


ড. কাজী এরতেজা হাসান, ছবি সংগৃহীত

ব্রুনাই দারুসসালামের সুলতান হাজী হাসানাল বলকিয়ার আমন্ত্রণে তিনদিনের সরকারি সফরে আগামী রবিবার (২১ এপ্রিল) ব্রুনাই যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। বরাবারের মতো এবারও তার সফরসঙ্গী হচ্ছেন দৈনিক ভোরের পাতা সম্পাদক ও প্রকাশক, এফবিসিসিআই পরিচালক ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় শিল্প-বাণিজ্য ও ধর্ম বিষয়ক উপকমিটির সদস্য ড.কাজী এরতেজা হাসান। এ সফর প্রসঙ্গে ড. কাজী এরতেজা হাসান বলেন, ‘ব্রুনাইয়ে তিন দিনের দ্বিপক্ষীয় সফর উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরসঙ্গী হতে পারাটা আমার জন্য অত্যন্ত আনন্দ ও ভীষণ গর্বেরও। আমি বিশ্বাস করি, বাংলাদেশ-ব্রুনাইয়ের সম্পর্কের উন্নয়ন দুই জাতিকেই অনেক এগিয়ে নিয়ে যাবে। বাংলাদেশ বন্ধুত্বে বিশ্বাসী।’ উল্লেখ্য, ভোরের পাতা গ্রুপ অব কোম্পানিজের চেয়ারপার্সন, ইরান-বাংলাদেশ চেম্বারের প্রেসিডেন্ট ও অ্যাঞ্জেল কম্পোজিট ইন্ড্রাস্টি লি.-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক, এফবিসিসিআই পরিচালক এবং বিশিষ্ট শিল্পপতি ড. কাজী এরতেজা হাসান-এর আগে সুইডেন, কম্বোডিয়া, ভারত ও জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে অংশ নিতে একাধিকবার প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হয়েছেন। ড. কাজী এরতেজা হাসান জানান, ‘বাংলাদেশ সারা পৃথিবীতে যে শান্তি স্থাপন করতে চাই, তার শুরুটা কিন্তু আমাদের বাংলাদেশিদের হৃদয় থেকেই। আমরা যখন বর্ণ-গোত্র-জাতি নির্বিশেষে আনন্দ ভাগাভাগি করে নিই, তখনই সত্যিকারের শান্তি প্রতিষ্ঠা পায়। ব্রুনাইয়ের মতো দেশে সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্যময় দেশের সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে পেরে আমরা গর্বিত।’ ড. এরতেজা হাসান বলেন, ‘আমরা বাংলাদেশিরা সাম্যে বিশ্বাসী। কেউ আলাদা নয়, সবাই সমান। ভিন্ন সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য আমাদের মধ্যে শক্ত বন্ধন তৈরি করে। সবাই নানা পেশায় আর কাজে ব্যস্ত থাকি। কিন্তু আমরা বিশ্বাস করি, সবারই স্বপ্ন আছে। সাম্যের পৃথিবীতে সবার স্বপ্ন বাস্তবে পরিণত করাই আমাদের লক্ষ্য। ড. এরতেজা আরও বলেন, ‘এই সফর দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য সম্প্রসারণ,
বাংলাদেশ ও ব্রুনাইয়ের মধ্যে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যসমূহ অর্জন ও দুই দেশের মধ্যে অভিবাসন, জলবায়ু পরিবর্তন এবং বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলার ক্ষেত্রেও সহযোগিতা জোরদার করবে।’ প্রধানমন্ত্রী ও তাঁর সফরসঙ্গীদের নিয়ে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি বিশেষ ফ্লাইট রবিবার সকালে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ব্রুনাইর উদ্দেশে যাত্রা করবে। বিমানটি স্থানীয় সময় দুপুর পৌনে ৩টায় ব্রুনাইয়ের রাজধানী বন্দরসেরি বেগাওয়ানে ব্রুনাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছবে। ব্রুনাইয়ের যুবরাজ হাজী আল-মাহতাদি বিল্লাহ বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে অভ্যর্থনা জানাবেন। বিমানবন্দরে আনুষ্ঠানিকতা শেষে প্রধানমন্ত্রীকে মোটর শোভাযাত্রা সহকারে ইম্পায়ার হোটেল অ্যান্ড কাউন্ট্রি ক্লাবে নেওয়া হবে। সফরকালে তিনি এই হোটেলে অবস্থান করবেন। সফরের প্রথমদিন প্রধানমন্ত্রী হোটেলটির ইন্দেরা মানুদেরা বলরুমে ব্রুনাই প্রবাসী বাংলাদেশিদের আয়োজিত সংবর্ধনায় যোগ দেবেন। একই দিন তিনি ব্রুনাইয়ে বাংলাদেশের হাইকমিশনার আয়োজিত নৈশভোজে যোগ দেবেন। পরদিন সোমবার প্রধানমন্ত্রী ব্রুনাইয়ের সুলতান বলকিয়ার সরকারি বাসভবনের ইস্তানা নুরুল ইমামে চেরাদি লায়লা কেনচানায় সুলতান ও রাজকীয় পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মিলিত হবেন। এরপর প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ইস্তানা নুরুল ইমামে বায়তুল মেশুরায় সুলতানের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান প্রেস সচিব ইহসানুল করিম। বৈঠক শেষে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হবে। একই দিন বিকালে প্রধানমন্ত্রী ইস্পায়ার হোটেল অ্যান্ড কাউন্ট্রি ক্লাবে ব্রুনাই ন্যাশনাল চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি আয়োজিত দু’দেশের ব্যবসায়ীদের মধ্যে অনুষ্ঠিতব্য বৈঠকে যোগ দেবেন। প্রধানমন্ত্রী জামে আসর মসজিদ পরিদর্শন এবং এ মসজিদে আসর নামাজ আদায় করবেন। শেখ হাসিনা সুলতান আয়োজিত তার সরকারি বাসভবনে ভোজসভায় যোগ দেবেন। প্রধানমন্ত্রী মঙ্গলবার সকালে ব্রুনাইয়ের রাজধানীর জালান কেবাংসানের কূটনৈতিক জোনে বাংলাদেশ হাইকমিশনের নতুন চ্যান্সেরি ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। পরে তিনি রয়েল রেজালিয়া জাদুঘর পরিদর্শন করবেন।
( সূত্র ভোরের পাত )

No comments

Powered by Blogger.